22 C
Dhaka
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, | সময় ৩:৫৪ পূর্বাহ্ণ

হরিপুরে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের দেওয়া হচ্ছে টিকা মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি

হরিপুর (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ

সারাদেশের মতো করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরেও শিক্ষার্থীদের মাঝে দেওয়া হচ্ছে টিকা, শিক্ষার্থীদের টিকাদান কেন্দ্র সমুহে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি, শিক্ষার্থীদের মাঝে নেই সামাজিক দূরত্ব। অনেকের মুখেও নেই মাস্ক। শিক্ষার্থীদের দাঁড় করানো হয়েছে গাদাগাদি করে। তাই টিকা প্রদান কেন্দ্র সমুহের এমন পরিবেশ-পরিস্থিতে কেন্দ্র থেকেই শিক্ষাথীদের সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি তৈরি হচ্ছে বলে মনে করেন অভিভাবক ও  সচেতন মহল। তারা বলেন, বাংলাদেশে যেখানে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ, যাত্রীবাহী গাড়ীগুলোতে অর্ধেক যাত্রী তুলার কথা থাকলেও এই অবস্থায় হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিক্ষার্থীদেরকে গাদাগাদি করে লাইনে দাড়িয়ে এভাবে টিকা দেওয়া অযৌক্তিক । নাম না প্রকাশে কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, টিকা দেওয়ার জন্য সকালে শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ স্কুলে আসতে বলেন শিক্ষকরা, আমরা সকালে স্কুলে আসে জানতে পারি টিকা স্কুলে দেওয়া হবে না, টিকা নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হবে ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সের সকল শিক্ষার্থীকে। আমরা সকালে নিজ ভাড়ায় গাড়ীতে করে হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসলেও বিকাল ৪টাতেও টিকা পাইনি। সকালে বাসায় খাওয়া করে বের হয়েছিলাম কিন্তু বিকাল  প্রায় ৪টা বাজলেও এখনো কিছু খাওয়া করতে পারিনি, কারণ আমরা জানি টিকাদান কর্মসূচি হবে আমাদের নিজ নিজ স্কুলেই তাই অতিরিক্ত টাকা নিয়ে আসিনি, সাথে যা টাকা আছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা-যাওয়াতেই সব খরচ হবে তাই খাওয়া করিনি তাছাড়া কেউ কেউ অতিরিক্ত টাকা নিয়ে আসলেও লাইন ছেড়ে খাওয়া করতে যাইনি পিছিয়ে পরার ভয়ে। হান্নান নামের এক অভিভাবক বলেন, আমার মেয়ে(হাসি) নবম শ্রেণীর ছাত্রী, হাসি সকালে আমার কাছ থেকে ৩০টাকা নিয়ে স্কুলে যাওয়ার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয় করোনার টিকা নিতে কিন্তু স্কুলে আসার পরে সে জানতে পারে টিকা স্কুলে নয় দেওয়া হবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, সে ঐ টাকা নিয়েই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌছানোর পরে তার এক বান্ধবীর ফোন থেকে বিষয়টি আমাকে জানায়, আমি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পৌঁছালে শিক্ষার্থীর এত ভিড়ে তাকে খুঁজে পাইনি ফোন দিলে তার বান্ধবী বলে হাসি আমার পাশে নেই, অবশেষে মেয়েকে না পেয়েই বাড়ি ফিরে আসি, টাকা ধার নিয়ে মাগরিবের সময় বাসায় ফিরেছে। গত ১৩ই জানুয়ারী (বৃহস্পতিবার) থেকে উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়। ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী এই শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকা দেওয়া হচ্ছে। হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গাদাগাদি করে লাইনে দাঁড়িয়ে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই টিকাদান কার্যক্রম চলছে।

আরও পড়ুন...

সন্দ্বীপে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মুল স্রোতধারায় সম্পৃক্ত করতে রিকল প্রজেক্টের উদ্যোগে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

Al Mamun Sun

ইউএনও’র নির্দেশে রাণীশংকৈল মিনি পার্কের ত্রুটিপূর্ণ রাস্তার দ্রুত মেরামত

Al Mamun Sun

মাদ্রাসা ছাত্রকে ৪র্থ তলা থেকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে

Al Mamun Sun
bn Bengali
X