29 C
Dhaka
শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, | সময় ৭:১৯ অপরাহ্ণ

মাধবপুরের প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ২৫শ’ টাকার তালিকায় নয়-ছয়!

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি :
হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার ১১নং বাঘাসুরা ইউনিয়নে প্রধানমন্ত্রীর ২৫শ’ টাকার ঈদ উপহারের তালিকায় ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ওই ইউনিয়নের উপকারভোগী ৯৩৩ জনের মাস্টার তালিকায় স্বজনপ্রীতি, মৃত ব্যক্তির নাম ও একই মোবাইল নাম্বার একাধিকবার ব্যবহার করা হয়েছে।
অনুসন্ধানের প্রাথমিক তথ্য বাচাইয়ে দেখা যায়, বাঘাসুরা ইউনিয়নের সবচেয়ে বেশি অনিয়ম হয়েছে ১নং ওয়ার্ডে। আর এই ১নং ওয়ার্ডেই বর্তমান চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দীন আহমেদের বাড়ি। এ অনিয়মকে অনেকেই ভুলবশত নয় বলে জানান। ইচ্ছাকৃতভাবে গরিবের জন্য দেয়া প্রাধানমন্ত্রীর এ উপহার আত্মসাতের উদ্দেশ্যেই চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দীন ও মেম্বার আমির আলী যাদুর জোগসাজসে এই তালিকা প্রণয়ন করেন।
প্রাথমিক বাছাইয়ে বেরিয়ে আসে ১নং ওয়ার্ডের বেশ কিছু অনিয়ম। যেখানে ১ মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে বিভিন্ন লোকের নামে। শুধু নামের পাশে নয়, পাশপাশি তালিকায় দেখানো হয়েছে ভিন্ন গ্রামও। ১নং ওয়ার্ডে প্রণিত তালিকায় ৮২নং ক্রমিকে মো: শেফু মিয়া, তাজপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার মোবাইল নাম্বার ০১৭৭১৯০০৬৪১ একজন টমটম চালক। এই নাম্বারটি তালিকায় ৬৫, ৬৬, ৬৮, ৬৯, ৭০, ক্রমিকে মোট দেয়া হয়েছে ৬বার। যা বিভিন্ন নামে ও ভিন্ন ভিন্ন গ্রাম দিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে। শিফু মিয়ার সাথে কথা হলে বাকি ব্যক্তি দু’জনকে চিনলেও তাদের নামের পাশে নাম্বার দেয়ার ব্যাপারে জানেন না কিছুই।
০১৭০৫৭৬৪২৬০ এই নাম্বারটি রিয়াজনগর গ্রামের আল-আমিন নামের একজন রাজমিস্ত্রীর, তার নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে দু’বার। এ ব্যাপারে আল-আমিন জানায়, ‘আমার নাম্বার দু’বার কেন ব্যবহার করবে?
০১৭০৩৪৮০৫১৪ এই নাম্বারটি রাধাপুর গ্রামের দরিদ্র খোদেজা বেগমের। তাজপুর বিলাল মিয়ার নামের পাশেও এই নাম্বার দেয়া হয়েছে। ফোন দিলে কথা হয় খোদেজা বেগমের ছেলের সাথে। সে জানায় তারা ভাই বোন। তবে বিলাল মিয়া স্বচ্ছল ব্যক্তি। টাকা উত্তোলন করার স্বীকারও করেন তিনি।
০১৭১৭৯৭১৮৮৫ এই নাম্বারটি তাজপুর গ্রামের রফিক মিয়ার। একই গ্রমের গোলাপ চানের পাশেও নাম্বারটি দেয়া। সম্পর্কে মামাতো ভাই বোন বলে জানান রফিক।
০১৭৭১০৬২৯৭৭ এই নাম্বারের মালিক তাজপুরের সাহেদা বেগম। তার নাম্বার ব্যবহার করা হয়েছে দুইবার। ফতেহপুরের লিটন মিয়ার নামের পাশেও দেয়া আছে এই নাম্বার। কথা হলে জানান তারা ভাই বোন।
০১৭৫৪৩০৭০৩৯ এই নাম্বারের মালিক ফতেহপুরের আনোয়ারা। কিন্তু তাজপুরের খুশনাহারের নামের পাশেও দেয়া আছে একই নাম্বার।
০১৭৮১৬৫৬০১৯ নম্বরটি ব্যবহার করা হয়েছে ৩ বার। তাজপুর, রিয়াজনগর ও ফতেহপুর উল্লেখ করে তিন ব্যক্তির নামের পাশে দেয়া। তবে নাম্বারে ফোন দিলে বন্ধ পাওয়া যায়।
চারবারের খ্যাত চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিনের বসবাসরত ১নং ওয়ার্ডে এমন অনিয়ম। শুধু ১নং ওয়ার্ডেই নয় এমন অনিয়ম হয়েছে প্রতিটি ওয়ার্ডেই।
তালিকার ৩নং ওয়ার্ডেও দেখা যায় একই নিয়ম। ০১৭৫৮৬১৪২০৪ নাম্বারটি ব্যবহার হয়েছে দুইবার। আবার ৩২৬৬৫১১৭১০ ডিজিটের একই এনআইডি ব্যবহার হয়েছে দুইবার। ৪নং ওয়ার্ডেও ০১৭৬৬৭৭৪৯০২ একটি নাম্বার দেয়া হয়েছে দুইবার।
অনুরূপ ৮নং ওয়ার্ডেও পাওয়া যায় বেশ কয়েকটি নাম্বার। তালিকায় ০১৭৭৭৫৬২৭১১ নাম্বার ব্যবহার হয়েছে দুইবার। ০১৭৭১২৯৮১৭৪ এই নাম্বারটিও দেয়া হয়েছে দুইবার।
অনেকের সাথেই কথা হলে জানান তারা কেউ কেউ ভাই বোন, অথবা মামাতো, খালাতো, ফুফাতো ভাই বোন। যা পুরো তালিকায় স্বজনপ্রীতি হয়েছে বলে এলাকাবাসীর দাবী।
এদিকে, তালিকায় ৬৬০নং ক্রমিকের ব্যক্তি জামাল মিয়া মৃত। কিন্তু তার নামও রয়েছে তালিকায়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন জানান, প্রতিটি ওয়ার্ডের মেম্বারগণ চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিনের লোক। তিনি যা বলেন তারা তাই করেন। নিজেদের লোকদের তালিকায় স্থান দিয়েছেন বলেও দাবী তাদের। তবে চেয়ারম্যানের আরও অনেক অনিয়মের কথা জানান এই প্রতিবেদকের কাছে।
এ বিষয়ে চেয়ারম্যান শাহাবুদ্দিন মুঠোফোনে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে অন্য একজন এ জবাব দেবেন বলে তিনি কল কেটে দেন।
এ ব্যাপারে মাধবপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাননূভা নাশতারান জানান, অনিয়মের কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি আমি জানি না। এখনো সংশোধন করা যাবে। তালিকাটি দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

আরও পড়ুন...

ঝিনাইদহে করোনা উপসর্গ নিয়ে যুবকের মৃত্যু

Staff correspondent

কালিগঞ্জ হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীরা যথাযথ সেবা থেকে বঞ্চিতঃ দেখবে কে?

Staff correspondent

আজ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৯তম মৃত্যুবার্ষিকী।

Staff correspondent
bn Bengali
X