24 C
Dhaka
শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, | সময় ১:৪১ অপরাহ্ণ

মতলবে আবারো ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু

মতলব ব্যুরোঃ

মতলবের নারায়ণপুর টাওয়ার হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিস ও ট্রমা সেন্টারে গত ৮ নভেম্বর সকালে সিজার অপারেশনের পর জান্নাতুল ফেরদাউস নামে এক প্রসূতির ভুল চিকিৎসায় মৃত্যু হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রসূতির পিতা ফয়েজ আহমেদ আজ সোমবার সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন। প্রসূতির পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ৭ নভেম্বর রাতে প্রসব বেদনা নিয়ে নারায়ণপুর টাওয়ার হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিস ও ট্রমা সেন্টারে জান্নাতুল ফেরদাউসকে ভর্তি করানো হয়। পরদিন সকালে ৮ নভেম্বর তাকে সিজার অপারেশন করা হলে ভুল চিকিৎসার কারণে তাৎক্ষনিক রোগীর খিচুনী শুরু হয়। অবস্থার অবনতি দেখা দিলে হাসপাতালের ডাক্তার রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঐ দিন দুপুরে প্রসূতির মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় প্রসূতির প্রবাসী স্বামী মহিন প্রধান তার স্ত্রীর মৃত্যু নিয়ে ফেসবুক পেইজে আবেগঘন স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসে তিনি উল্লেখ করেন ডাক্তারের ভুল চিকিৎসায় তার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। তিনি স্ত্রী হত্যার বিচার দাবী করেন।    প্রসূতির পিতা ফয়েজ আহমেদ জানান, ডাক্তারদের ভুল চিকিৎসায় আমার মেয়ের মৃত্যু হলো। আমার দুটি নাতি নাতনী মা হারা হলো। এ হাসপাতালে এমন মৃত্যুর অভিযোগ অসংখ্য রয়েছে। আমি সরকারের কাছে আমার মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই এবং এ হাসপাতাল বন্ধ করার দাবী জানাই। যাতে ভবিষ্যতে আমার মেয়ের মতো আর কারো মৃত্যু না হয়। মঙ্গলবার বিকেলে স্থানীয়রা জানায়, প্রসূতির পরিবারের সাথে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের শালিসী বৈঠক চলছে। মৃত ব্যক্তির পরিবারকে জরিমানা দিয়ে বিষয়টি মিমাংসার চেষ্টা করা হচ্ছে। 
প্রসূতি মৃত্যুর বিষয়ে এনেস্থিসিয়া ডাক্তার বাকী বিল্লাহ জানান, আমার কাজ এনেস্থিসিয়া করা আমি সঠিক ভাবেই করেছি। এর পরের বিষয় আমি জানি না।
হাসপাতালের চেয়ারম্যান সার্জন ডা. মুহিবুর রহমান সাদাত জানান, এ বিষয়ে ডাক্তার বাকী বিল্লাহ সব বলতে পারবেন। ওনার সাথে যোগাযোগ করেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডাক্তার মহিবুর রহমান সাদাত একজন সাধারণ এমবিবিএস ডাক্তার তিনি কোন বিশেষজ্ঞ সার্জন নন তবে নিজেকে সার্জন দাবী করেন। হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ নজরুল ইসলাম মুঠোফোনে সাংবাদিকদের জানান, নিউজ লেখেন। নিউজ লেখলে কি হবে। সেটা আমি পরে দেখবো।
উল্লেখ্য নারায়ণপুর টাওয়ার হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিস ও ট্রমা সেন্টারে ডাঃ মহিবুর রহমান সাদাত এর ভুল চিকিৎসায় একাধিক মৃত্যু হয়েছে। ঐ হাসপাতালে ওটিবয় দিয়েও অপারেশন হয়।
উল্লেখ্য বিভিন্ন পত্র পত্রিকার মাধ্যমে জানা যায়, গত (২৬ মে) ২০২০ইং তারিখে একটা হাত ভাঙা (অর্থোপেডিক্স) রোগীকে ফুসলিয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়ে দালালের মাধ্যমে নারায়ণপুর টাওয়ার হাসপাতাল এন্ড ডায়াবেটিস ও ট্রমা সেন্টারে ভর্তি দেয়া হয়। রোগী ও তার লোকজনকে বলা হয় ঢাকা থেকে বড় সার্জন এনে অপারেশন করাবে। ঢাকা থেকে মহিউদ্দিন মামুন নামের এক ওটিবয় আনা হয় অপারেশন করানোর জন্য গণমাধ্যম কর্মী ও জনসাধারণের তোপের মুখে পরে পালিয়ে যায় ওটিবয় এখনো দেখা যায়নি কোন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহনের দৃশ্য। 
আরো জানা যায়, গত (১২ জুলাই) ২০২০ইং ভুল চিকিৎসায় নবজাতক শিশুর মৃত্যু ঘটে বলে শিশুর বাবা ও পরিবারের অভিযোগ। এ ঘটনার রেশ না কাটতেই গত (১৬ জুলাই) নুরুন্নাহার মনি (২৭) নামে এক প্রসূতির গর্ভে মৃত্যু শিশু এনেস্থিসিয়া ডাক্তার না থাকায় জোর পূর্বক নরমাল ডেলিভারি করতে গিয়ে প্রসূতি মায়ের মৃত্যু হয়।
প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ স্থানীয় প্রভাবশালী ও বাজার কমিটির লোকদেরকে নিয়ে শালিসী বৈঠকে টাকার বিনিময়ে হচ্ছে একের পর এক মৃত্যুর রফাদফা। এই মৃত্যুর মিছিলের শেষ কোথায় প্রশ্ন ভুক্তভোগীদের।

আরও পড়ুন...

সীতাকুণ্ডে মুকিম আফজল সড়ক সংলগ্ন খাল দখলের হিড়িক

Staff correspondent

নড়াইলে কালের বিবর্তনে ভালোবাসার স্মৃতিবিজড়িত ডাকঘর গুলো বিলিনের পথে

Al Mamun Sun

আত্রাইয়ে সবজির বাজার লাগামহীন দিশেহারা নিন্ম আয়ের মানুষ।।

Al Mamun Sun
bn Bengali
X