24 C
Dhaka
বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, | সময় ১২:৪৯ অপরাহ্ণ

বশেমুরবিপ্রবিতে ইটিই বিভাগকে ইইই বিভাগে রূপান্তরের দাবিতে মানববন্ধন


সজিবুর রহমান, বশেমুরবিপ্রবি সংবাদদাতাঃ

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইলেকট্রনিকস এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগকে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রিকস ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগে একীভূত করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীরা।  
মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সকাল ১০ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এরপর দুপুর ১ টার দিকে মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীরা ভিসি রুমের সামনে অবস্থান নেয়।
২০১৯ সালের ১৭ অক্টোবর থেকে ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীরা ইইই বিভাগে একীভূতকরণের দাবি জানিয়ে আসছে। এসময় তারা বেশকিছু আন্দোলন করেন। প্রত্যেকবারই প্রশাসন থেকে তাদেরকে আশ্বস্ত করা হয়। কিন্তু এপর্যন্ত কোনো সমাধান হয়নি। যার কারণে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।  এসময় শিক্ষার্থীরা দাবি আদায়ে বক্তৃতা দেয়।
মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী ইটিই বিভাগের ২০১৬-১৭ বর্ষের শিক্ষার্থী কামরুল ইসলাম বক্তৃতাকালে বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি আদায়ে সোচ্চার। আগের প্রত্যেকটি আন্দোলনে প্রশাসন থেকে দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে কিন্তু আন্দোলন তুলে নিলে কোনো সমাধান পায়নি। বর্তমান উপাচার্য মহোদয় দায়িত্ব গ্রহণের পর পরই এক ফেসবুক লাইভে আমাদের দাবিকে যৌক্তিক বলেন। কিন্তু এখনো কোনো সমাধান পায়নি আমরা। আন্দোলনের সময় শিক্ষকরা আমাদের অভিভাবক সেজে আশ্বস্ত করে। কিন্তু আন্দোলন প্রত্যাহার করলে তাদের কোনো খোঁজ থাকে না। আমরা চাই ইইই বিভাগের সিলেবাসের সাথে মিল রেখে আমাদের ক্লাসে ফিরিয়ে আনুক।
এছাড়াও, তিনি কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারী দিয়ে বলেন, আমরা ডিসেম্বর পর্যন্ত দেখবো। এসময়ে  ট্রিপলিতে অন্তর্ভুক্ত না করলে আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থান করবো ও অনশন করবো।
মানববন্ধনকালে অন্য এক শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের দাবি না মানলে আমরা অনশন ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করবো। এতে কোনো শিক্ষার্থী অসুস্থ হলে বা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকলে এর দায়ভার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে নিতে হবে। 
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. নূরউদ্দিন আহমেদ বলেন, মাননীয় উপাচার্য বরাবর আলোচনার জন্য স্মারকলিপিটি উপস্থাপন করা হয়েছে। স্মারকলিপিতে কি লেখা আছে আমার জানা নেই। মাননীয় প্রক্টর আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে এ বিষয়ে কথা বলবেন।
মানববন্ধন শেষে আন্দোলনকারীরা ভিসি রুমের সামনে আধা ঘণ্টা ধরে অবস্থান নেয়। ভিসি স্যার ডেকে পাঠিয়েছে বলে তারা সেখানে অবস্থান নিয়েছে বলে শিক্ষার্থীরা জানান।
উল্লেখ্য, গত জানুয়ারী মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে টানা ৬-৭ দিন ধরে দাবি আদায়ে অনশন কর্মসূচি পালন করে। তখন ১৬ সদস্যর একটি কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত কমিটি দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন প্রত্যাহার করে। কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি। পরে ৬ অক্টোবর রেজিস্ট্রার বরাবর একটি স্মারকলিপি ও দেয় ইটিই বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

আরও পড়ুন...

ড.আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে নোবিপ্রবি স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের শোক

Staff correspondent

নোবিপ্রবি ছায়া জাতিসংঘের ৩ জন সাময়িক বহিষ্কার 

Staff correspondent

শাবিপ্রবির ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ

Staff correspondent
bn Bengali
X